Our-Lebukhali | Village Of Heart! Template
Our-Lebukhali
Lebukhali News/Entertainments Blog

× Home লেবুখালী নিউজ খেলা বিনোদন বিশ্ব লাইফস্টাইল শিক্ষা বাংলাদেশ স্বাস্থ্য
ব্রেকিং নিউজঃ পটুয়াখালীর দশমিনায় ৪৬ বছরের আগে দাফন করা ব্যক্তির অক্ষত কাফনে মোড়ানো দেহাবশেষ - শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমস - হুমায়ুন ফরিদীর জন্মদিন আজ - পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে বেড়িবাঁধ ভেঙে ৫০টির মত গ্রাম প্লাবিত - লেবুখালীর পোলাপানের আনন্দের কিছু মুহূর্তের ভিডিও -
������������������ ��������������������������������������� ������������������������ ��������������������������� ��������������������� ��������������� ������������ ������������������ ��� ��������������� ������������| Our-Lebukhali

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমস

লেখকঃ adminক্যাটাগরিঃ খেলাপ্রকাশের সময়ঃ May 30, 2021মন্তব্য 0 টি

রনি আহম্মেদঃ
ভয়ানক আসক্তিতে বিধ্বস্ত তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সুপারিশে সাড়া দিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় পর্যায়ক্রমে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমস নিষিদ্ধ করার আভাস দিয়েছেন। এর আগে পাবজি সাময়িকভাবে বন্ধ করা হলেও পরে আবার চালু করা হয়। বিষয়টি নিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতেও আলোচনা হয়। সেখানে ওই দুই গেমের আসক্তি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ওই দুটি গেম কিশোর-কিশোরী ও তরুণদের মধ্যে আসক্তি তৈরি করেছে।হঠাৎ করে বন্ধ করতে গেলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করবে। তাই ধীরে সুস্থে বিকল্প পদ্ধতিতে গেম দুটি বন্ধের উদ্যোগ নেয়া হবে। যারা এ ধরনের গেমে আসক্ত তারা ভিপিএনসহ নানা বিকল্প উপায়ে গেমটি খেলতে পারবেন। আমরা সেসবও বন্ধে পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করবো। অনলাইন ভিত্তিক ফ্রি ফায়ার ও পাবজি নামক খেলায় দেশের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা আসক্ত হয়ে বিপথগামী হচ্ছে, জড়িয়ে পড়ছে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে। বিভিন্ন খারাপ সাইটে প্রবেশ করে নৈতিক চরিত্র নষ্ট করছে। বিভিন্ন মানসিক সমস্যায় ভুগছে। সম্প্রতি নেপালে পাবজি নিষিদ্ধ করে দেশটির আদালত। একই কারণে ভারতের গুজরাটেও এ গেম খেলার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল। এমনকি গেমটি খেলার জন্য কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছিল। ফ্রি ফায়ার,পাবজি ইত্যাদি খেলা সমাজে নেতিবাচক প্রভাব ও শিক্ষার্থী- কিশোর-কিশোরীদের সহিংস করে তুলছে এমন আশঙ্কা থেকেই এগুলো বন্ধ করা উচিত বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমানে দেশে জনপ্রিয় তরুণ প্রজন্মের মাঝে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি। দক্ষিণ কোরিয়ার গেম ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান ব্লু হোয়েল এর অনলাইন ভিডিও ২০১৭ সালে চালু হয়। এরপর থেকে এই গেমটি দ্রুত বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। অন্যদিকে চায়না প্রতিষ্ঠান ২০১৯ সালে তৈরি করা যুদ্ধ গেম ফ্রি ফায়ার একইভাবে তরুণ প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। কিন্তু এই গেম দুটির ব্যবহারের ফলে দিনে দিনে এর অপব্যবহার এর মাত্রা এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে এর ফলে তরুণ প্রজন্ম যাকে কিশোর গ্যাং বলা হয়। এরা চরমভাবে বিপথগামী হয়ে উঠেছে। তিনি বলেন, বিশেষ করে করোনা মহামারির ফলে স্কুল, কলেজ, ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার ফলে অন্যদিকে অনলাইনভিত্তিক ক্লাস হওয়ার ফলে অভিভাবকরা তার সন্তানদের হাতে সহসাই ল্যাপটপ, মোবাইল ডিভাইস তুলে দিতে বাধ্য হচ্ছে। এ সুযোগের বেশির ভাগ অপব্যবহার ঘটছে। এমনকি তরুণ প্রজন্ম এই গেম দুটির প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে। মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, তাই এই গেম দুটি নিয়ন্ত্রণে সরকারকে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাই। তিনি বলেন, গত ২১শে মে চাঁদপুরে মামুন (১৪) নামে এক তরুণ মোবাইলের ডাটা কেনার টাকা না পেয়ে মায়ের সঙ্গে অভিমান করে আত্মহত্যা করে। আমরা যখন আগামীর তরুণ প্রজন্মকে সহজলভ্য দ্রুতগতির ইন্টারনেট প্রাপ্তির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি ঠিক তখন আগামী তরুণ প্রজন্ম প্রযুক্তির অপব্যবহার করে বিপথগামী হয়েছে। যা আমাদেরকে ভাবিয়ে তুলেছে। টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং নিয়ন্ত্রক কমিশনকে দ্রুত এবং দ্রুততার সহিত এই গেমগুলোর অপব্যবহার বন্ধ এবং ভালো দিক তুলে ধরতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি জনসচেতনতা গড়তে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি। সংশ্লিষ্টরা জানান, এ ধরনের গেম খেলার ফলে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে। অনলাইনে গেম খেলার পাশাপাশি ভার্চ্যুয়ালে অর্থ লেনদেন হচ্ছে এমএমএস প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। আর এতে করে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রাষ্ট্র, সমাজ, ব্যক্তি ও পরিবার। বাংলাদেশে খেলা দুইটি বন্ধে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের আশ্বাসের সংবাদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। বিশেষ করে শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে একধরনের স্বস্তির সুবাতাস বইছে। এধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করায় সংশ্লিষ্টদের সাধুবাদ জানান সচেতন মহল। তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সুপারিশমালা বাস্তবায়নের তাগিদ দিয়েছেন তাঁরা। অনুরোধে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমস মোঃ জিয়াউর রহমান: ভয়ানক আসক্তিতে বিধ্বস্ত তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সুপারিশে সাড়া দিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় পর্যায়ক্রমে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমস নিষিদ্ধ করার আভাস দিয়েছেন। এর আগে পাবজি সাময়িকভাবে বন্ধ করা হলেও পরে আবার চালু করা হয়। বিষয়টি নিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতেও আলোচনা হয়। সেখানে ওই দুই গেমের আসক্তি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ওই দুটি গেম কিশোর-কিশোরী ও তরুণদের মধ্যে আসক্তি তৈরি করেছে।হঠাৎ করে বন্ধ করতে গেলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরি করবে। তাই ধীরে সুস্থে বিকল্প পদ্ধতিতে গেম দুটি বন্ধের উদ্যোগ নেয়া হবে। যারা এ ধরনের গেমে আসক্ত তারা ভিপিএনসহ নানা বিকল্প উপায়ে গেমটি খেলতে পারবেন। আমরা সেসবও বন্ধে পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করবো। অনলাইন ভিত্তিক ফ্রি ফায়ার ও পাবজি নামক খেলায় দেশের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা আসক্ত হয়ে বিপথগামী হচ্ছে, জড়িয়ে পড়ছে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে। বিভিন্ন খারাপ সাইটে প্রবেশ করে নৈতিক চরিত্র নষ্ট করছে। বিভিন্ন মানসিক সমস্যায় ভুগছে। সম্প্রতি নেপালে পাবজি নিষিদ্ধ করে দেশটির আদালত। একই কারণে ভারতের গুজরাটেও এ গেম খেলার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল। এমনকি গেমটি খেলার জন্য কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছিল। ফ্রি ফায়ার,পাবজি ইত্যাদি খেলা সমাজে নেতিবাচক প্রভাব ও শিক্ষার্থী- কিশোর-কিশোরীদের সহিংস করে তুলছে এমন আশঙ্কা থেকেই এগুলো বন্ধ করা উচিত বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, বর্তমানে দেশে জনপ্রিয় তরুণ প্রজন্মের মাঝে ফ্রি ফায়ার ও পাবজি। দক্ষিণ কোরিয়ার গেম ডেভেলপার প্রতিষ্ঠান ব্লু হোয়েল এর অনলাইন ভিডিও ২০১৭ সালে চালু হয়। এরপর থেকে এই গেমটি দ্রুত বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। অন্যদিকে চায়না প্রতিষ্ঠান ২০১৯ সালে তৈরি করা যুদ্ধ গেম ফ্রি ফায়ার একইভাবে তরুণ প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। কিন্তু এই গেম দুটির ব্যবহারের ফলে দিনে দিনে এর অপব্যবহার এর মাত্রা এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে এর ফলে তরুণ প্রজন্ম যাকে কিশোর গ্যাং বলা হয়। এরা চরমভাবে বিপথগামী হয়ে উঠেছে। তিনি বলেন, বিশেষ করে করোনা মহামারির ফলে স্কুল, কলেজ, ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার ফলে অন্যদিকে অনলাইনভিত্তিক ক্লাস হওয়ার ফলে অভিভাবকরা তার সন্তানদের হাতে সহসাই ল্যাপটপ, মোবাইল ডিভাইস তুলে দিতে বাধ্য হচ্ছে। এ সুযোগের বেশির ভাগ অপব্যবহার ঘটছে। এমনকি তরুণ প্রজন্ম এই গেম দুটির প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে। মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, তাই এই গেম দুটি নিয়ন্ত্রণে সরকারকে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাই। তিনি বলেন, গত ২১শে মে চাঁদপুরে মামুন (১৪) নামে এক তরুণ মোবাইলের ডাটা কেনার টাকা না পেয়ে মায়ের সঙ্গে অভিমান করে আত্মহত্যা করে। আমরা যখন আগামীর তরুণ প্রজন্মকে সহজলভ্য দ্রুতগতির ইন্টারনেট প্রাপ্তির জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি ঠিক তখন আগামী তরুণ প্রজন্ম প্রযুক্তির অপব্যবহার করে বিপথগামী হয়েছে। যা আমাদেরকে ভাবিয়ে তুলেছে। টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং নিয়ন্ত্রক কমিশনকে দ্রুত এবং দ্রুততার সহিত এই গেমগুলোর অপব্যবহার বন্ধ এবং ভালো দিক তুলে ধরতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি জনসচেতনতা গড়তে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি। সংশ্লিষ্টরা জানান, এ ধরনের গেম খেলার ফলে বিপুল পরিমাণ অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে। অনলাইনে গেম খেলার পাশাপাশি ভার্চ্যুয়ালে অর্থ লেনদেন হচ্ছে এমএমএস প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে। আর এতে করে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে রাষ্ট্র, সমাজ, ব্যক্তি ও পরিবার। বাংলাদেশে খেলা দুইটি বন্ধে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের আশ্বাসের সংবাদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন। বিশেষ করে শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে একধরনের স্বস্তির সুবাতাস বইছে। এধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করায় সংশ্লিষ্টদের সাধুবাদ জানান সচেতন মহল। তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সুপারিশমালা বাস্তবায়নের তাগিদ দিয়েছেন তাঁরা।


আরও সম্পর্কিত পোস্ট

0 COMMENTS
Be The First To Comment Here

Leave a Reply

Name:


Comment:









ফেসবুকে আমাদের অনুসরণ করুন



Connect With Us

Address: Lebukhali, Patuakhali, Bangladesh.
Host Adress : Chowdhury Bari, Godnyle, Naraynganj
Email: ourlebukhali@gmail.com
Imo: +8801759490829
Editor and Publisher : Rony Ahammed
Phone : +8801623767123